একটু সময়

আজকাল আমরা আমাদের প্রতিটা মুহূর্ত, প্রতিটা সেকেন্ড কোনো না কোনো ভাবে নিজেদেরকে ব্যস্ত রাখি। যেন ব্যস্ত না থাকাটা একটা অন্যায়, একটা অপরাধ! Productivity আর Hustle culture এর এই যুগে, আমাদের জীবনের প্রতিটি সেকেন্ড থেকে output বের করার একটা নেশা চেপে গেছে। কাজের ফাঁকেও যে মাথাটা, মনটা কিছুটা রেস্ট নিবে, সে সুযোগও নেই। স্মার্টফোনটা তুলে নিয়ে স্ক্রল করেই যাচ্ছি অনবরত। 

দিনের একটু সময়, অল্প কিছু মুহূর্ত কি এমন রাখতে পারিনা, যে সময়ে ব্রেইনটাকে একটু বিশ্রাম দিব। ঘুরে বেড়াতে দিব তাকে নিজের মতো? 
এর জন্য একটা ভালো উপায় হলো হাটতে বের হয়ে যাওয়া। হাটতে হাটতে ফোনে কথা না, অফিসের কিছু পেন্ডিং কল করা না। জাস্ট হাটা।
অথবা বারান্দায় বা ছাদে কিছু সময় বসে থাকা। আকাশ দেখা, গাছ, পাখি দেখা। মনকে ওর নিজের মতো একটু থাকতে দেয়া, কোনো কাজ না দেয়া। 

আগে নিয়মিত হাটা হলেও, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাইরে হাটাহাটি করি না। তাই কিছু সময় কাটাই প্রতিদিন বিকেলে আমার ছাদে। কিচ্ছুক্ষন বসে চুপচাপ মেডিটেশন, তারপর একটু হাটাহাটি, আলো বাতাস খাওয়া। 

আর প্রায়ই  চোখে পড়ে এমন কিছু সৌন্দর্য্য, যা সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত। আজকে বিকালে সেরকম একটা গিফট পেলাম। আরেকটু হলে পায়ের নিচেই পড়তো। ঝরে পড়া শুকনো একটি পাতা, অথচ কি আশ্চর্য সুন্দর!




এরকম সৌন্দর্যের কোনো অভাব নেই চারপাশে। কিন্তু আমাদের না আছে দেখার সময়, না আছে আগ্রহ।

তবে একটু সময় বের করলে, একটু চোখ মেলে দেখলে, আমরা দেখবো, মন ভালো করার মত কত শত রং রূপ, কত উপকরণ আল্লাহ ছড়িয়ে রেখেছেন চারপাশে।

Comments

Popular posts from this blog

Sylhet 2009 (Day 3): The Other Side of the Fence

ড: হাসিবের গল্প

ভান করতে থাকো